রাশিয়ার টিকা নিরাপদ ও কার্যকর

রাশিয়ার গামালেয়া ইনস্টিটিউটের প্রধান আলেকজান্ডার গিন্টসবার্গ বলেন, করোনাভাইরাস মহামারিতে একরকম যুদ্ধাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। যুদ্ধে যেমন মানুষ মারা যায়, তেমনি মানুষ মারা যাচ্ছে। করোনার রাশিয়ান টিকা ‘স্পুটনিক ফাইভ’ তৈরিতে নিরাপত্তা ও কার্যকারিতার সব ধাপ যথাযথভাবে অনুসরণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, রাশিয়ার উৎপাদিত টিকা নিয়ে বিশ্বজুড়ে রয়েছে উদ্বেগ। বিজ্ঞানী মহল, এমনকি পশ্চিমা কোনো দেশ থেকে এর স্বীকৃতি দেয়া হয়নি। তবে রাশিয়া প্রথম ৬ সপ্তাহ এই টিকা যাদের ওপর প্রয়োগ করেছে, তার ভিত্তিতে প্রাথমিক রিপোর্ট প্রকাশ করার পরিকল্পনা করছে।

তিনি বলেছেন, একটি টিকা উৎপাদনের জন্য তার টিমকে একটি টাইট ডেডলাইন দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তাই বলে স্পুটনিক ভি তৈরিতে নিরাপত্তা ও কার্যকারিতার সব গাইডলাইন অনুসরণ করা হয়েছে। তাই প্রথম ৪২ দিন যেসব স্বেচ্ছাসেবকের ওপর এই টিকার পরীক্ষা চালানো হয়েছে তার অন্তর্বর্তী ফল প্রকাশ করার পরিকল্পনা রয়েছে রাশিয়ার। এর অর্থ হলো, বিশ্বে চলমান টিকার চূড়ান্ত দফা বা তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষার ডাটা আসার আগেই বিশ্বজুড়ে প্রথম হওয়ার উচ্চ আশা আছে রাশিয়ার। এ জন্যই এই ফল প্রকাশ করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।
গত ৯ সেপ্টেম্বর প্রথম ৫০০০ স্বেচ্ছাসেবককে এই টিকা দেয়া হয়েছে। এর অর্থ ২১ শে অক্টোবরের পরে এই অন্তর্বর্তী ফল আসতে পারে। রাশিয়ার যে তহবিল থেকে এই টিকায় বিনিয়োগ করা হয়েছে, তারা বলেছে অন্তর্বর্তী ফল অক্টোবর বা নভেম্বরে প্রকাশ হতে পারে। ওদিকে পশ্চিমা বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের টিকার চূড়ান্ত দফার পরীক্ষা চলছে। তা চলছে ৪২ দিনের বেশি। তবে এখনও তারা কোনো অন্তর্বর্তী ফল বা রিপোর্ট প্রকাশ করেনি।

গিন্টসবার্গ বলেছেন, ৪২ দিনের পরীক্ষা পর্যবেক্ষণের পর অন্তর্বর্তী ফল জানতে জনগণের আগ্রহ রয়েছে। এই টিকার বিষয়ে এতে তাদের ধারণা পরিষ্কার হবে।

তিনি বলেন, যে ৪০ হাজার স্বেচ্ছাসেবকের ওপর সর্বশেষ টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে তাদেরকে ১৮০ দিন বা ৬ মাস পর্যবেক্ষণ করা হবে। ৬ মাস চলছে। এখন তার টিম চূড়ান্ত রিপোর্ট করার পরিকল্পনা করছে এবং তা আন্তর্জাতিক জার্নালগুলোতে প্রকাশ করা হবে। এরই মধ্যে প্রাথমিক পর্যায়ের রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছে দ্য ল্যানচেট ম্যাগাজিনে। একদিকে যখন পরীক্ষা চলছে তখন উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা মানুষদের ৮ সেপ্টেম্বর থেকে এই টিকা দেয়া শুরু করেছে রাশিয়া।

গিন্টসবার্গ বলেছেন, তাদের টিকায় বড় কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। তবে সামান্য টুকিটাকি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। তাও তাদের শতকরা হার ১৪ থেকে ১৫।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *